Questions Solution

করোনাভাইরাস (কোভিড-১৯) প্রবন্ধ রচনা বাংলা এসএসসি, এইচএসসি সহ সকল শ্রেণীর জন্য

করোনাভাইরাস অনুচ্ছেদ রচনা ৬ম থেকে ৯ম শ্রেণীর এবং এসএসসি, এইচএসসি পরীক্ষার জন্য

coronavirus composition
কোভিড-১৯ কীভাবে অন্যান্য ভাইরাসের সাথে তুলনা করে? | ছবি :ওয়ালডেন বিশ্ববিদ্যালয়

করোনাভাইরাস (কোভিড-১৯) প্রবন্ধ রচনা বাংলা এসএসসি, এইচএসসি সহ সকল শ্রেণীর জন্য; বিসমিল্লাহির রাহমানির রাহীম, পোস্টটির মাধ্যমে আমরা তুলে ধরতে চলেছি বিশ্ব জুড়ে চলা মহামারী করোনা ভাইরাস (কোভিড-১৯) এর নানা তথ্য-উপাত্ত । এবং যার উপর লিখব একটি প্রবন্ধ, রচনা বা অনুচ্ছেদ । উক্ত করোনা ভাইরাস (কোভিড-১৯) রচনাটি পড়ে আপনি জানতে পারবেন; করোনা ভাইরাসের উৎপত্তি স্থান, কি ভাবে ছড়ায়? করোনা হলে আপনার শরীরের ভিতর ঠিক কি ঘটে? কোভিড-১৯: কিছু ভুল ধারনা ভেঙ্গে দেওয়া, করোনা ভাইরাস রোগ (কোভিড-১৯) নিয়ে কিছু প্রশ্ন ও উত্তর । উল্লেখ্য যে, উক্ত করোনা ভাইরাস (কোভিড-১৯) রচনাটি আপনি ৬ম, ৭ম, ৮ম, ৯ম শ্রেণীসহ প্রতিযোগিতা মূলক পরিক্ষা যেমন জেএসসি, এসএসসি, এবং এইচএসসি, জন্য লিখতে পারবেন ।

ভূমিকা :

করােনা ভাইরাস শ্বাসযন্ত্রের ভাইরাসগুলাের একটি বৃহৎ পরিবার যা মানুষ এবং প্রাণীতে অসুস্থুতার কারণ হতে পারে। বিরল ক্ষেত্রে, প্রলীর মধ্যে দর্ণিত করােনা ভাইরাসগুলাে মানুষকে বিবর্তিত করতে এবং সংক্রমিত করতে পারে। ঘুরেফিরে, এই সংক্লমণ গুলাে স্বল্প সময়ের মধ্যেই একজন থেকে অন্যজন্র মধ্যে সহজেই ছড়িয়ে পড়ে।

চীনের হুবাই প্রদেশের উহান শহরে অজানা ভাইরাল নিউমােনিয়ার ঘটনা নিশ্চিত হওয়ার পরে ডিসেম্বর ২০১৯ সালে করােনা ভাইরাসটির প্রাদুর্ভাব প্রথম প্রকাশিত হয়েছিল। সার্স-কোভ-এর সাথে মিল থাকার কারণে ভাইরাসটির নামকরণ করা হয়েছে : সিভিয়ার অ্যাকিউট রেসিপরি সিড্রোম করােনা ভাইরাস ২ (সার্স-কোভি-২)। এই ভাইরাসটি এই রােগকে কোভিড-১৯ করােনা ভাইরাস রােগ হিসেবে চিহ্নিত করে। ২০১৯ সালে অন্যান্য করােনা ভাইরাস গুলোর মতােই সার্স-কোভ-২ প্রাণী থেকে এসেছে বলে সন্দেহ করা হচ্ছে, সম্ভাব্য বাদুড় থেকে।

করোনাভাইরাস (কোভিড-১৯) প্রবন্ধ রচনা বাংলা :

ভাইরাসটি সংক্রমিত ব্যক্তির সংস্পর্শে এসে প্রাথমিকভাবে এক ব্যক্তিকে অন্য ব্যক্তি থেকে সংক্রমণ করে। যখন কোনাে সংক্রমিত ব্যক্তি কাশি, ইচি বা শবাস ছাড়েন, তখন ফোটাগুলাে বের করে দেওয়া হয় এবং অন্য ব্যক্তির নাক বা মুখে যায় এবং ফুসফুসে চলে যায়। ভাইরাস সং্রমিত ব্যক্তির দ্বারা সংক্রমনের লক্ষণ দেখা যায় না। এজন্য কমপক্ষ ২ মিটার (৬ ফুট) দূরে থাকা খুবই জরুরি।

সংক্রমিত ফোটাগুলাে পৃষ্ঠতল বা বস্তুগুলোতেও থাকতে পারে। যখন কোনাে সংক্রমিত স্থান স্পর্শ করে এবং তার মুখ, নাক বা চোখ স্পর্শ করে তখন ভাইরাসটি তার মধ্যে সংক্রমিত হতে পারে।

প্রমাণ রয়েছে যে, কোভিড-১৯-এ সংক্রমিত লােকেরা লক্ষণগুলাে বিকাশেের আগে অন্যদের মধ্যে ভাইরাস সং্রমণ করতে পারে (প্রাক-লক্ষণীয় সংক্রমণ হিসেবে পরিচিত)। শান্ত প্রকৃতির লক্ষণঁযুক্ত ব্যক্তিদের (যেমন- হালকা কাশি এবং অসুস্থতার কোনাে লক্ষণ নেই) বা ভাইরাসের সংক্রমণে কোনাে লক্ষণ না থাকলেও এক ব্যক্তি অন্য ব্যক্তিকে সংক্রমণ করতে পারে।

সর্বাধিক সাধারণ লক্ষণগুলাের মধ্যে রয়েছে ফু জাতীয় লক্ষণ যেমন- জ্বর, শুকনাে কাশি এবং শ্বাসকষ্ট বা শ্বাসকষ্টের মতাে লক্ষণ। লক্ষণগুলাের মধ্যে শীতল হয়ে ওঠা এবং বারবার কাপুনি, পেশি ব্যথা, মাথাব্যথা, গলাব্যথা এবং স্বাদ বা গল্ধ-অনুভূতি হ্রাস অন্তর্ভুক্ত থাকতে পারে। প্রকাশিত হওয়ার পরে সাধারণত ২ দিন থেকে ১৪ দিনের মধ্যে লক্ষণগুলাে দেখা দেয়।

দুর্বল প্রতিরােধ ব্যবস্থা-সহ প্রবীণরা এবং পূর্ব-বিদ্যমান অবস্থার (বিশেষত উচ্চ রক্তচাপ, হার্ট বা ফুসফুসের রােগ, ক্যানসার বা ভায়াবিটিস) গুরুতর অসুসতার ঝুঁকিতে দেখা যায়।

এছাড়াও দেখতে পারেন:

আমরা কোভিড-১৯ থেকে আমাদেরকে এবং অন্যদের নিম্নলিখিত কার্যাবলির মাধ্যমে সুরক্ষা দিতে পারি :

  • স্বাস্থ্যবিধি অনুশীলন করে।
  • সাবান এবং জল দিয়ে ঘনঘন এবং পুঙ্খানুপুঙ্খভাবে হাত ধােয়ায় মাধ্যমে।
  • কমপক্ষে ৬০% অ্যান্সকোহল যেখানে সাবান এবং জল পাওয়া যায় না সেখানে অ্যালকোহলভিত্তিক হ্যান্ড স্যানিটাইজার ব্যবহার করে।
  • যারা অসুহথ দেখা যায় তাদের সাথে ঘনিষ্ঠ যােগাযােগ এড়িয়ে চলে- কাশি বা ইাঁচি হয় এমন ব্যক্তির থেকে কমপক্ষে ২ মিটার (৬ ফুট) দূরত্ব রেখে।
  • মুখ স্পর্শ করা এড়িয়ে চলে।
  • হাঁচি এবং কাশি বাছু বা একটি টিস্যু এর কুটিল মধ্যে। টিস্যুটি ব্যবহারের সাথে সাথে ফেলে হাত ধুয়ে ফেলুন।
  • সর্বজনীল স্থানে একটি মুখােশ পরে (স্থানীয় স্বাস্থ্য কর্তৃপক্ষের দ্বারা প্রস্তাবিত বা প্রয়ােজনীয় হিসেবে)।
  • অসুস্থ বােধ করলে বাড়িতেই অবস্থান করে। আমাদের মাথাব্যথা বা নাক দিয়ে স্রোতের মতাে হালকা লক্ষণ থাকলেও অন্যের কাছে অসুস্থতা এড়ানাে থেকে বাঁচতে বাড়িতে থাকা জরুরি।
  • ঘরে বসে এবং অন্যের সাথে ঘনিষ্ঠ যােগাযােগ এড়িয়ে শারীরিক দূরত্ব অনুশীলন করা। শারীরিক দূরত্বের উদাহরণগুলাের মধ্যে রয়েছে যদি সম্ভব হয় তবে বাড়ি থেকে কাজ করে জনসমাগমের স্থানগুলাে (রেস্তোরা, সিনেমা) এড়িয়ে চলে অফ-পিক আওয়ারের সময় বাইরে প্রয়ােজনীয় ভ্রমণ করে এবং অন্যের সংস্পর্শে থাকার জন্য কার্যকর সরঞ্জামগুলাে ব্যবহার করে।

উপসংহার :

নােবেল করােনা ভাইরাসটি এত দ্রুত ছড়িয়েছে যে, এটি বিশ্বের ছন্দ বদলে দিয়েছে। একক দেশ বা বহুপাক্ষিক স্তরের দৃষ্টিকোণ থেকে, আন্তর্জাতিক সম্পর্কের ঘনতব পরীক্ষা করা হয়েছে। সর্বাধিক সুস্পষ্ট পরিণতির মধ্যে রয়েছে অর্থনৈতিক মন্দা, বৈশ্বিক প্রশাসনের সংকট, বাণিজ্য সুরক্ষাবাদ এবং বর্ধমান বিচ্ছিন্নতাবাদী মনােভাব। জনাণের কাছে জনগণ, সাংস্কৃতিক এবং ভ্রমণ বিনিময় সবই সীমাবন্ধ রয়েছে। যাই হােক, এটি আইসবার্গের মাত্র একটি টিপ। এখনই উপযুক্ত সময় প্রচলিত চিন্তাভাবনা ত্যাগ করার এবং অবশেষে একটি নৈতিক দৃষ্টিকোণ থেকে অভিনয় শুরু করার।

সিলেবাসে অন্তর্ভুক্ত করেছেন: জাতীয় শিক্ষাক্রম ও পাঠ্যপুস্তক বোর্ড (এনসিটিবি)

EducationResultBD

I hope you are enjoying this article. Thanks for visiting this website & stay connected with us.

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button